প্রমগ্ন কবিতাবলি – গৌরাঙ্গ মোহান্ত (পূর্ণাঙ্গ বই)

প্রমগ্ন কবিতাবলি – গৌরাঙ্গ মোহান্ত (পূর্ণাঙ্গ বই)

প্রমগ্ন কবিতাবলি গৌরাঙ্গ মোহান্ত প্রথম প্রকাশ: ফেব্রুয়ারি ২০১৭ গ্রন্থস্বত্ব: রিনা মোহান্ত প্রচ্ছদ: মোস্তাফিজ কারিগর প্রচ্ছদ প্রতিকৃতি: আহমেদ শিপলু প্রকাশক: শিরিন আক্তার (ছোট কবিতা) ৮৫ কনকর্ড এম্পোরিয়াম মার্কেট, ২৫৩-২৫৪ এলিফ্যান্ট রোড, কাঁটাবন, ঢাকা-১২০৫, বাংলাদেশ। মোবাইল: +৮৮০১৭৭৭৪৭৭৭৪৪ পরিবেশক বাংলাদেশ: কবি (ঢাকা), বেহুলাবাংলা (ঢাকা); পাঠক সমাবেশ (ঢাকা); কাগজ…

বেঁচে থাকার অন্ধকার

বেঁচে থাকার অন্ধকার

বেঁচে থাকার অন্ধকার  সাগরজেলের আলো অপস্রিত হবার পর মনে হলো বেঁচে থাকবার জন্য ব্রহ্মাণ্ড অন্ধকারকে জিইয়ে রাখে। অন্ধকার আছে বলে কিছু দার্শনিক দারুচিনি পাতায় জীবাণুমানবের গতিচক্র আঁকে। আমিও এক খণ্ড অন্ধকারের পাশে লেকসজল অরণ্যভূমি গড়ে তুলি। এ অন্ধকারে আলো দিকভ্রান্ত হয়ে শুধু শীর্ষপত্রে মধু ঢেলে…

খোয়াইজলে  ভেসে  যাওয়া 

খোয়াইজলে  ভেসে  যাওয়া 

খোয়াইজলে  ভেসে  যাওয়া  দরজা খুলে  দাঁড়াতেই বাতাসে একটানা বাজতে থাকে পার্থিব ঝুমঝুমি। আমি পার্থিব শব্দের সৈকতে হেঁটে হেঁটে পর্বতে প্রতিধ্বনিত অর্ফিয়াসের গান শুনি। অথচ ঝুমঝুমির শব্দ দুঃসহ কেন? যারা ঝুমঝুমি বাজায় তারা কি বৃন্দবাদনের দেয় নি মহড়া? দরজা বন্ধ করে সিডরতাড়িত হরিণের মতো পড়ে থাকি,…

প্রতারণাগহন  রাত্রিজল ও শূন্যতা 

প্রতারণাগহন  রাত্রিজল ও শূন্যতা 

প্রতারণাগহন  রাত্রিজল ও শূন্যতা  প্রার্থনামন্দ্রিত সমুদ্রতল প্রতারণাগহন রাত্রিজলে প্রসারিত হতে থাকে। দুঃসহ আলোক ও দগ্ধতা নিয়ে অন্তরবিজুবন আন্দোলিত হয় অনুক্ষণ। হৃদয় যত শ্যামল, তত শূন্যতায় পূর্ণ। শূন্যতা, বিষাদিত বৃক্ষের দীর্ঘশ্বাসে সমাচ্ছন্ন উন্নিদ্র নিশা। শূন্যতা, নভোমণ্ডলের ঔদার্যে উদ্ভাসিত ব্যাপ্ত দিগন্ত। শূন্যতা, শবযাত্রার ম্লানতায় অনুলিপ্ত অনিবার্য হিমবাহ।…

মৃত্যুগানের  শূন্যতা  হতে 

মৃত্যুগানের  শূন্যতা  হতে 

মৃত্যুগানের  শূন্যতা  হতে  পত্রালিক্রন্দন মৃত্যুগানের শূন্যতা হতে ঝরে পড়ে তামাটে পাথরের উত্থানশূন্য বক্ষঃস্থলে। পাথরের ম্লান হাসি জন্মগন্ধ ছুঁয়ে আসে। অস্পষ্ট মাতৃমুখ স্বপ্নের জ্বালামুখ বেয়ে গড়ে তোলে গভীরসমুদ্র তলদেশ। বালিয়াড়ি অন্তরালে রাখে অথই সংলাপের সোনালি কংকাল। জ্যোতির্বলয়তাপে পাথর দৃষ্টি খোলে। বিপন্ন আলোয় জেগে ওঠে কালপেঁচা অন্ধকার।…

অলক্ষ্য  লিথস্ফিয়ার

অলক্ষ্য  লিথস্ফিয়ার

অলক্ষ্য  লিথস্ফিয়ার (পরম শ্রদ্ধাস্পদ ড. বিনয় কুমার বন্দ্যোপাধ্যায়কে নিবেদিত) অন্ধকারের অলক্ষ্য লিথস্ফিয়ারে পদযাত্রার প্রস্তুতি চলে। সূর্যের কোরিওগ্রাফি বৃক্ষের নিষ্ক্রিয়তা মোচন করে না, ক্লরফিলশূন্য সেই দুর্গমনীয় ভূমণ্ডলে নিঃসঙ্গ যাত্রার ক্লান্তি নিবারণের জন্য গুছিয়ে রাখি মেঘের শীতল ব্যাগ। উদ্ভাসউতল শব্দাবলি উদ্ধারপ্রার্থী — যাত্রার আগে তাদের শুভ্র শেল্ফে…

অব্যাখ্যাত  শুককীট  প্রার্থনা

অব্যাখ্যাত  শুককীট  প্রার্থনা

অব্যাখ্যাত  শুককীট  প্রার্থনা অনুরুদ্ধ পর্বত ধসে যাবে জেনেও বিমুখ করে না। তার ক্রন্দনধারা মৃত্তিকার বুকে অথৈ পথের বিমর্ষ ধ্বনি। অনিরুদ্ধ জলস্ফীতি আমার রুদ্ধবাক চেতনাতট ছুঁয়ে যায় এবং অব্যাখ্যাত শুককীটপ্রার্থনা মঞ্জুর করে। আমি শ্রেষ্ঠ দৃশ্য দেখে পবিত্র পর্বত পাদদেশে যখন মাথা রাখি তখন বিহ্বল পর্বত কেঁপে…

ত্রেত্রিশ গুচ্ছ পালক

ত্রেত্রিশ গুচ্ছ পালক

ত্রেত্রিশ গুচ্ছ পালক মেঘের অস্থিরতায় পালক গজাতে থাকে।পালকের সাথে উড়ে চলে আকাশ।মেঘ তোমাকে জেনে গেছে; ত্রেত্রিশ গুচ্ছ পালক নিয়ে তুমি উড়েছো আকাশে। আকাশের পথগুলো কৃষ্ণচূড়া জন্মাতে পারেনা বলে তোমাকে পাইনি খুঁজে।তোমার পালকে মিশিয়ে রেখো গুলমোহরের রং; আকাশকে নিয়ে আমরা উড়ে যাবো আটলাণ্টিক অথবা আন্দামানের তীরে।জলের…

নৈঃশব্দ্যের শূন্যতা

নৈঃশব্দ্যের শূন্যতা

নৈঃশব্দ্যের শূন্যতা শব্দের ভেতর দিয়ে নৈঃশব্দ্যের শূন্যতায় হাঁটি।তোমারপা-চেতনা থেকে বৃষ্টির ছবি ঝরে পড়ে।সিঁড়ির বাতাসে দীর্ঘতর হয় নাইটকুইন। দূর থেকে ছুঁয়ে দেখি ঘাসের জাগরণ। মাঠবাড়ির ধুলো নারকেলপাতায় চুমু খেয়ে আমার বুকের ভেতর শুয়ে থাকে। আমি ধুলোর গন্ধ ছড়িয়ে রাখি মেঘে। তিস্তা কিংবা আন্দামানের জলে জেগে থাকে…

হাওয়াপথ

হাওয়াপথ

হাওয়াপথ বাতাস-এঞ্জিনের শব্দের ভেতর নির্জনতা – পথছবি যে চুম্বনকে ঢেকে রাখে তা প্যাশন ফলের রক্তিম বর্ডার পেরিয়ে আসছে। হাওয়াপথে নদীর ঢেউ বসানো থাকে। আমি ক্রমাগত দুলছি – নৈঃশব্দ্যের কাছে ফুটে চলেছে পার্কফুল। আমার পাশে কয়েক ঘন্টার জন্যে কিছু যাত্রী কম্বলের নিচে মৃত্যুবরণ করছে; তাদের নাকে…